প্রথম আলো ব্লগ এর শুভ সূচনা


অবশেষে সবার অপেক্ষার ও আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু প্রথম আলো ব্লগ প্রকাশিত হলো।
বাংলাদেশের কিংবদন্তীতুল্য পিএইচপি প্রোগ্রামার হাসিন হায়দার এবং ইমরান হাসান এর সম্পূর্ণ প্রোগ্রামিং করেন।

হাসিন হায়দার বর্তমানে i2we.com নামক আমেরিকাভিত্তিক সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানে সিনিয়র সফটওয়্যার প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত আছেন। প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ফেসবুকের অন্যতম একজন প্রতিষ্ঠাতা ডেভেলপার এবং এটি এখন মূলত ফেসবুকের অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপ করে। তাদের তৈরি নামকরা অ্যাপ্লিকেশন গ্রুপের নাম হলো – i am green

আর ইমরান হাসান নিজেই বেশ অল্প বয়সে সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠান দিয়েছেন, যা বাংলাদেশে বেশ নামকরা একটি প্রতিষ্ঠান। যার নাম হলো রাইটব্রেইন সল্যুশন। এই দু’জনেরই রয়েছে যথেষ্ট কীর্তিময় অতীত।

বিশাল আয়োজনের প্রথম আলো ব্লগ পরীক্ষামূলকভাবে খুলে দেয়া হয়েছে সবার জন্য ২৫শে অক্টোবর ২০০৮ থেকে। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে এর প্রারম্ভ ঘোষণা করা হবে ৪ঠা নভেম্বর ২০০৮। প্রতিনিয়তই তমূল ব্লগারের সমাহার ঘটছে এই ব্লগে। নি:সন্দেহে বলা যায় ব্লগিংয়ের ধ্যান-ধারণা পাল্টে দিতেই এসেছে প্রথম আলো ব্লগ। পরীক্ষামূলক পর্যায়ে এটিতে এখনো অনেক ভুল-ত্রুটি বিদ্যমান যার জন্য হাসিন হায়দার ও ইমরান হাসান ছাড়াও তাদের বন্ধুবৎসল সব প্রোগ্রামার প্রায় নির্ঘুমভাবে এর উন্নয়ন বা সহযোগীতা করে চলেছেন।

এক নজরে এই ব্লগের কারিগরী দিকগুলো:
প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ : পিএইচপি (সার্ভার সাইড) এবং জাভাস্ক্রিপ্ট (ক্লায়েন্ট এন্ড)
ফ্রেমওয়ার্ক : অর্কিড (পিএইচপি ফ্রেমওয়ার্ক) এবং জেকোয়েরী (জাভাস্ক্রিপ্ট ফ্রেমওয়ার্ক)  [অর্কিড মূলত হাসিন হায়দার এর উদ্ভাবিত একটি ফ্রেমওয়ার্ক]
ডেটাবেজ সার্ভার : মাইএসকিউএল
ওয়েব সার্ভার : অ্যাপাচে
ক্যাশিং সার্ভার : মেমক্যাশ
স্ট্যাটিক কন্টেন্ট স্টোরেজ এর জন্য : অ্যামাজন সিম্পল ষ্টোরেজ সার্ভার (s3 নামে যেটা পরিচিত)  [ছবি আপলোড ]
ফেইলসেফ স্ট্যাটিক কন্টেন্ট ডেলিভারীর জন্য : লাইটটিপিডি

এইচটিটিপি রেসপন্স ভার্চুয়ালি জিজিপ কম্প্রেস করার জন্য : অ্যাপাচি মড ডিফ্লেট
এইচটিটিপি রেসপন্স ক্লায়েন্ট সাইডে ক্যাশ করার জন্য : অ্যাপাচি মড এক্সপায়ারি

অ্যানালাইটিকস : গুগল অ্যানালাইটিকস

এছাড়া বাংলা লেখার জন্য একুশে‘র বাংলা টাইপিং স্ক্রিপ্ট সমূহ ব্যবহার করা হয়েছে যার কিছু হাসিন হায়দার এবং কিছু মাঞ্চুমাহারার লেখা । সমস্ত জাভাস্ক্রিপ্ট লাইব্রেরী গুলো কম্প্রেস করা হয়েছে ইয়াহু ইউ আই কমপ্রেসর (যেটা আসলে ডোজো রাইনোর উন্নত সংস্করন) ব্যবহার করে। পুরো অ্যাপ্লিকেশনটিতেই সার্ভার সাইড ক্যাশ ব্যবহার করা হয়েছে ডেটাবেজের উপর থেকে লোড কমানোর জন্য।

ডেভেলপমেন্ট প্ল্যাটফর্ম: ম্যাকিনটোশ এবং ম্যামপ, ফায়ারফক্স এবং ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারে টেস্ট করা

ব্যবহৃত আইডিই(IDE) – জেন্ড স্টুডিও (হাসিন হায়দার), ন্যূস্ফিয়ার পিএইচপিএড (ইমরান) এবং একলিপ্স পিডিটি (আনিস)। এছাড়া জাভাস্ক্রিপ্ট লেখার জন্য তারা বেশী ব্যবহার করেছেন আপটানা।

গ্রাফিক্যাল আইকন(ইমোটিকন ও অবতার) ব্যবহার করা হয়েছে সেগুলো ট্যাংগো প্রজেক্ট এবং ফ্যামফ্যামফ্যামের সিল্ক আইকন সেট থেকে নেয়া।

এখন পর্যন্ত একটা লোড ব্যালান্সার আর তিনটা মেমক্যাশ সার্ভার আছে দিয়ে চলছে ব্লগটি। স্কেলেবিলিটর ব্যপারটা একদম শুরু থেকে খেয়াল রাখা হয়েছে। সার্ভার দেশের বাইরে – ডেডিকেটেড।

19 thoughts on “প্রথম আলো ব্লগ এর শুভ সূচনা

  1. Pingback: জেডসিই « el NiNo

    • Well if you Asked about PA blog, I didn’t work on that. Hasin Hayder and Emran Hasan did. But I believe he used memcache on the same server along with apache.

  2. প্রথম আলো ব্লগ সাইটটা আসলে এতটা ভাল না যে এ নিয়ে আনন্দ করার কিছু আছে। আপনারা যে কেউ ঐ সাইটে যান নিজেই আবিষ্কার করেন যে সাইটা কতটা বাগ সম্পন্ন। সাইটটা অ্যাজাক্স ব্যবহার করেছে। আশা করি আপনারা জানেন যে দূর্বলভাবে এবং অদক্ষতার সাথে অ্যাজাক্স ব্যবহার করলে সেইটাই সাইটের জন্য ঝুকির কারণ হয়ে দ্বাড়ায়। প্রথম আলো ব্লগ সাইটটা খুব সহজেই হ্যাক করা যায়। এবং সাইটটা দেখলে আমার হাসতে হাসতে পেটে খিল ধরে যায়। আমার মনে হয় কেউ যদি ভালমত প্রোগাম না লিখতে পারে তার কোন অধিকার নেই এতগুলো টাকা নষ্ট করার।

    • প্রথম আলো ব্লগ সাইটটি দৃষ্টি নন্দন সেটি বোধহয় স্বীকার করবেন। আর বাগ থাকতেই পারে। যদি জেনে থাকেন সহজেই হ্যাক করা যায়, তাহলে হ্যাক করুন না।
      হাসিন হায়দার জানিয়েছেন, সিম্পলিসিটি রাখতেই অনেক জটিল নিরাপত্তা ব্যবস্থা এতে প্রয়োগ করা হয়নি। এখন আপনার যদি মনে হয় তাতে আরো অনেক উন্নতি করা উচিৎ ছিলো তাহলে আপনি তাকে অথবা প্রথম আলো কর্তৃপক্ষকে জানান।🙂
      সাইট দেখে পেটে খিল ধরার সাথে কিন্তু এর নিরাপত্তা সরাসরি জড়িত থাকার কথা নয়। …
      আপনার ইমেইল বা নাম দেননি ব্যাপার কী?

  3. আমি বুঝিনা যে আপনারা আই টি রিলেটেড ব্যাক্তি হয়ে কেন খারাপটাকে খারাপ বলে স্বীকার করেন না? আপনি কিভাবে জানেন যে আমি হ্যাক করিনি? হাঃ হাঃ হাঃ অনেকটা মায়ের কাছে মামা বাড়ির কথা হয়ে গেল না?!! আমার মনে হয় আপনি দৃষ্টি নন্দন বলে ভুল করছেন। আর যদি আপনার কাছে সত্যিই মনে হয় তাহলে আপনি ইন্টারনেটে তেমন কিছুই শেখেন নি। আর আমি কি বোকা হ্যাকার যে সব তথ্য দিয়েই দিব?? আমি আমার সব এখন পাল্টাতে যাচ্ছি কেননা আমি একটি কাজ সফলতার সাথে সম্পন্ন করেছি। পারেন তো ট্রেস করেন না!!!! এমন কি এটা বের করেন যে কি করেছি।।। হাঃ হাঃ হাঃ

    • দেখুন হ্যাকার বলে নিজেকে জারী করার আগে হ্যাকার হবার যোগ্যতা অর্জন করুন। প্রচলিত প্রতিরোধ ব্যবস্থা সহজেই ভাঙতে পারে এমন কেউ মানেই হ্যাকার নয়। নিজে কিছু আবিষ্কার করুন। প্রকৃত হ্যাকাররা নিজেরাই নতুন কিছু আবিষ্কার করে প্রতিনিয়ত। হ্যাকারের কাজ প্রটেকশন ভাঙা বা নিরাপত্তা ভেদ করা নয়। বরং যেকোন কিছু সম্পর্কে অন্যদের তুলনায় অনেক অনেক গভীর জ্ঞান অর্জন করা। আমার জ্ঞান সীমিত তাই আমি নিজেকে প্রোগ্রামারই বলতে দ্বিধাবোধ করি। তবে যা জানি তা দিয়ে শখের বশে রোজগার করে দিনাতিপাত করি।
      একটা ব্যাপার বিশ্বাস করি, যেকোনো কিছু গড়া কঠিন হলেও ভাঙা খুব সহজ হয়ে থাকে। পৃথিবীর এমন কোনো নিরাপত্তা ব্যবস্থা সম্পূর্ণ নিরাপদ দাবী করতে পারেনা। কারণ অভিজ্ঞ হ্যাকার বা চোর অনুকূল অবস্থা যেকোনো ভাবেই তৈরি করে নিতে পারে। বিধ্বংসী চিন্তা বিশেষত ব্ল্যাক হ্যাট হ্যাকারদের মাথাতেই থাকে। কিন্তু এটা মনে রাখবেন প্রায় সবার কিছুটা বিধ্বংসী চিন্তা থাকলেও সবাই হ্যাকার নয়। প্রকৃত হ্যাকার অত্যন্ত দক্ষ প্রোগ্রামার, সে ইন্টারনেট, নেটওয়ার্কিং, প্রোগ্রামিং এগুলো সম্পর্কে সাধারণ বা অভিজ্ঞ প্রোগ্রামার থেকেও অনেক অনেক গভীর জ্ঞান রাখেন। ডকুমেন্টেড ফীচারস ছাড়াও সব আনডকুমেন্টেড বা অনুদ্ঘাটিত বিষয়ে তার পদচারণা থাকে।
      এবার আসি আপনার পালো ব্লগ হ্যাকিং এর কথায়। হ্যাঁ আপনি কেনো আমার পরিচিত এক নবীস কম্পিউটার ব্যবহারকারিও পালো ব্লগ নিয়মিত তথাকথিত ‘হ্যাক’ করে থাকে যে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে🙂 ও নি:সন্দেহে স্ক্রীপ্ট কিডি(scrpt kiddie) আর আপনারও তাই হবার সম্ভাবনা বেশি, বড় জোর ক্র্যাকার :D। কোড ইঞ্জেকশন, ক্রস সাইট স্ক্রীপ্টিং, সেশন হাইজ্যাকিং, কুকি হাইজ্যাকিং, ইমেইল ইঞ্জেকশন, ক্রস-সাইট রিকোয়েস্ট ফোর্জারী, ক্রস-সাইট স্ক্রীপ্ট এটাক, ক্লিক জ্যাকিং এসব কমন অনেক দুর্বলতা আছে পালো ব্লগে। আর এগুলো এড়ানোও খুব কঠিন জ্ঞানের অধিকারী হতে হয়না। পালো’তে ইনপুটগুলো ফিল্টার করে নেয়া হয়না প্রায় একেবারেই। আমি আগেই উল্লেখ করেছি কেনো হাসিন হায়দার সেগুলো করেননি। পালো ব্লগে একা হাসিন হায়দারও কাজ করেননি: সাথে এমরান হাসান, আনিসুল আরো কয়েকজন সহযোগিতায় ছিলেন। আমার জানামতে উপরে উল্লেখিত নিরাপত্তার দুর্বলতা কয়েকটি ওখানে আছে আর সেগুলো সামান্য কয়েকদিন HTML আর জাভাস্ক্রীপ্ট শিখেই এটাক করা যায়। আর সেগুলোর প্রতিবিধান যদি পালো ব্লগ কর্তৃপক্ষ চাইতেন তাহলেই হয়তো তারা তা করে দিতেন। পালো ব্লগে আমি আর যাই না, আপনি ওটাতে যা পারেন করেন😀
      আপনি সত্যিকারের হ্যাকার বা ব্ল্যাক ‘হ্যাট হ্যাকার’ (যারা অনেকাংশে অপ্রতিরোধ্য) হয়ে থাকলে আপনি আমার মতো নির্গুণ লোকের কাছে এসে পড়ে মরতেন না। হাসিন হায়দার বা এমরান হাসানের কাছেই যেতেন।
      আমার ক্ষুদ্র জ্ঞানে এখনো বুঝতে পারিনি কী করেছেন এখানে(পালো ব্লগে কিছু করে থাকলে গোল্লায় যান, সেটা দেখার সময় নেই :))। আপনি যখন হ্যাকার তাই আপনার প্রাপ্ত তথ্য এখানে দিচ্ছি কারণ এতে আপনার কোনো ক্ষতি হবার সম্ভাবনা নেই তা আপনি নিশ্চিত🙂
      m@mk.cc <– Monikar Online Services Inc, LA, CA, USA
      120.50.176.106 <– এটি আপনার উভয় কমেন্টেই একই http://network-tools.com/default.asp?prog=express&host=120.50.176.106

    • Ya, I was banned on 16th December by বিখ্যাত/কুখ্যাত কলু মামো🙂
      If you read early articles by ব্লগ সঞ্চালক there you’ll get the clue. He even threatened me over phone of suing me😛 hilarious story!

    • হা হা প গে!😀
      কলুমামো মানে হচ্ছে : ব্লগ সঞ্চালক
      ওটা দিয়ে খুঁজুন।

      আমার মনে হয় ঐ নামে কুখ্যাত/বিখ্যাত মা.মো(মাহবুব মোরশেদ) এখনও ওখানে মডারেটর ইন চীফ।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s