অভিধান বাংলা


English to Bengali Dictionary Logo
bengalinux.org/english-to-bengali-dictionary
অঙ্কুর প্রকল্পের একটি অংশ হিসেবে বাংলা অভিধান করা হয়েছে। অসম্পূর্ণ বা অঙ্কুরেই রয়ে গেছে বলা যায়। তবে শব্দযোগ
করার সুবিধা রয়েছে আপনারাও শব্দযোগ করে সমৃদ্ধ করতে পারেন।

ovidhan.org

অনেক বেশি বিজ্ঞাপন পুরো পাতা ভর্তি। রুচিকর কোনো ডিজাইনও করা হয়নি। বিভিন্ন ব্রাউজারে অনেক কিছুই কাজ করেনা। অভিধান ততোটা সমৃদ্ধ নয়, তবে মন্দের ভালো। বাংলা এন্ট্রিগুলো ইউনিকোডে নয়। ছবি রেখে দেয়া আছে। বাংলা থেকে বাংলা অভিধান এর অভাব পূরণ করে না। মূলত সংসদ বাংলা অভিধানের বাংলা থেকে ইংরেজী সংস্করণ। এটি দিয়ে মোটামুটি কাজ চলে।

bangladict.org
সিসটেক ডিজিটালের একটি উদ্যোগ। তেমন কার্যকর নয়, বলা আছে কেবল উইন্ডোজ এবং ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারেই ওটি কাজ করে। তবে, এটি একেবারেই বাস্তব কাজের উপযোগী নয়।

Bangla Dictionary

dictionary.evergreenbangla.com
এটিকে মূলত ডিকশনারী বা অভিধান বলা যাবে না। মূলত ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগ বা সিএমএস ইঞ্জিন ব্যবহার করে এটি তৈরি করা হয়েছে। মোটামুটি সমৃদ্ধ আর ইউনিকোডভিত্তিক। অন্যগুলোর থেকে এটি অনেকদিক দিয়ে এগিয়ে। এতে বিভিন্ন শব্দের উপর মন্তব্য করতে পারেন যে কেউ। একটি উদাহরণ দেখুন : অংশ শব্দটির উপর

অতীতে বা এখনো বাংলার উপর প্রচুর উৎসাহী লোক কাজ করেছেন। অনেকে অনেক গবেষণা করেছেন। কেউ অপটিক্যাল ক্যারেক্টার রেকগনিশন(OCR), কেউ ভয়েস সিনথেসাইজেশন, ভয়েস রেকিগনিশন, অভিধান, ভাষান্তর ইত্যাদি নানাকাজে নানা সময়ে পণ্ডিত-অপণ্ডিত অনেকেই কাজ করেছেন। যারা এই পোস্টটি পড়ছেন তাদেরও অনেকেই উৎসাহ বোধ করবেন হয়তো। কিন্তু কথা হচ্ছে সমন্বয় সাধিত হবে কবে?

বিজয় নাকি ইউনিজয়?


একার + ক = কে না লিখে,
ক এ-কারে কে লিখিনা কেনো?
একার + ক + আকার = কো না লিখে,ক ও-কারে কো লিখিনা কেনো?

এটুকুই তো তফাৎ বিজয় আর ইউনিজয়ে!

এখন দেখি কেনো অবতারণা এই আলোচনার:

১. বিজয় পদ্ধতিতে ইউনিকোডের নিয়ম মেনে লেখা হয়না।

২. এ পদ্ধতিতে লেখা টেক্সটকে সর্টিং বা সার্চিং করা কঠিন।

৩. এ পদ্ধতির লেখাকে সঠিক ইউনিকোডে রূপান্তর করার জন্য কনভার্টার/রূপান্তরক ব্যবহার করতে হয়। তাতে ভুল হবার সম্ভাবনা থাকে।

৪. এ পদ্ধতির তুলনায় ইউনিজয় কেবলই কার-যুক্ত লেখার জন্য ব্যতিক্রমি ও ইউনিকোড বান্ধব লে-আউট ব্যবহার করে।

৫. ইউনিজয়ে লেখা একটু হলেও দ্রুততর, সর্টিং/সার্চিং উপযোগি।

ইউনিজয়ে লেখার ব্যাপারগুলো নিচে দেখাচ্ছি:

সব স্বরবর্ণ কী করে লিখি?

অ << Shift + f

্ + া = আ << g + f

্ + ি = ই << g + d

্ + ী = ঈ << g + D

্ + ু = উ << g + s

্ + ূ = ঊ << g + S

্ + ৃ = ঋ << g + a

্ + ে = এ << g + c

্ + ৈ = ঐ << g + C

্ + ো = ও << g + x

্ + ৌ = ঔ << g + X

আ-কার, ও-কার এসব?

ক + া = কা << j + f

ক + ি = কি << j + d

ক + ী = কী << j + D

ক + ু = কু << j + s

ক + ূ = কূ << j + S

ক + ৃ = কৃ << j + a

ক + ে = কে << j + c

ক + ৈ = কৈ << j + C

ক + ো = কো << j + x

ক + ৌ = কৌ << j + X

দেখুন মার্কার দেয়া

৫টি

অংশেই কেবল আপনার অভ্যাস বদলাতে হবে
(শেষের দুটি টাইপিং গতি বাড়ায় কারণ দুটি আলাদা চিহ্ন টাইপ করার প্রয়োজন হয়না!)

গুরুত্বপূর্ণ লিংকস:

১. OmiCronlab.com এর অভ্র কীবোর্ড ও কনভার্টার Best of the best

২. এক্সপিতে বাংলা ইনস্টল করতে রিফাতের কিছু দারুণ সমাধান।(কোপাকিলার আবিষ্কার করে বিখ্যাত:))

৩. একুশে প্রকল্পের বাংলা ফন্টসমূহ

৪. উইকিপিডিয়া’য় বর্ণিত বাংলায় লিখন ও পঠন পদ্ধতি

৫. নির্বাচন কমিশন প্রণীত বাংলা ইউনিকোড কনভার্টার এটি কতোটা সর্বসম্মত তাতে অবশ্য বিতর্কের অবকাশ রয়েছে।

৬. মুর্শেদের ইউনিকোড লেখনী ও পরিবর্তক ২.১.০ অনলাইনেই পরিবর্তন করে নিন আপনার পুরানো বিজয় ও লেখনীতে লেখা ডকুমেন্ট।

My Contribution to FaceBook localization


I am glad to inform you all that I am currently ranking 9th in the FaceBook Translators Leaderboard 😀

9th
EL NiNo
123 winning words.
265 winning phrases.
546 total votes.

Statistics

332    Total Translators
6.535 Translations Submitted
362 Translated By you
17.724 Untranslated Phrases

প্রথম আলো ব্লগ এর শুভ সূচনা


অবশেষে সবার অপেক্ষার ও আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু প্রথম আলো ব্লগ প্রকাশিত হলো।
বাংলাদেশের কিংবদন্তীতুল্য পিএইচপি প্রোগ্রামার হাসিন হায়দার এবং ইমরান হাসান এর সম্পূর্ণ প্রোগ্রামিং করেন।

হাসিন হায়দার বর্তমানে i2we.com নামক আমেরিকাভিত্তিক সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানে সিনিয়র সফটওয়্যার প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত আছেন। প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ফেসবুকের অন্যতম একজন প্রতিষ্ঠাতা ডেভেলপার এবং এটি এখন মূলত ফেসবুকের অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপ করে। তাদের তৈরি নামকরা অ্যাপ্লিকেশন গ্রুপের নাম হলো – i am green

আর ইমরান হাসান নিজেই বেশ অল্প বয়সে সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠান দিয়েছেন, যা বাংলাদেশে বেশ নামকরা একটি প্রতিষ্ঠান। যার নাম হলো রাইটব্রেইন সল্যুশন। এই দু’জনেরই রয়েছে যথেষ্ট কীর্তিময় অতীত। Continue reading